বুধবার ২২ জানুয়ারি ২০২০ ৯ মাঘ ১৪২৬
 
জাতীয়
বিজেপির আপত্তিকর বক্তব্য ঢাকা-দিল্লি সম্পর্কের ক্ষতি করছে
বিজেপির আপত্তিকর বক্তব্য ঢাকা-দিল্লি সম্পর্কের ক্ষতি করছে





টাইমস অব ইন্ডিয়া
Thursday, Dec 12, 2019, 3:05 pm
Update: 12.12.2019, 3:08:50 pm
 @palabadalnet

নয়া দিল্লি: বিতর্কিত সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট বিল (সিএবি) নিয়ে যে বিতর্ক চলছে, তার একটা অপ্রত্যাশিত পাশ্বপ্রতিক্রিয়া হলো বাংলাদেশের সাথে সম্পর্কের উপর এটা প্রভাব ফেলবে। 

লোকসভায় বিল নিয়ে বিতর্কের সময় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ জোর দিয়ে বলেছেন যে, শেখ মুজিবুর রহমান যতদিন জীবিত ছিলেন, ততদিন বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের ওপর একটিও নির্যাতনের ঘটনা ঘটেনি। কিন্তু খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে পরিচালিত বিএনপি সরকারের সময় হিন্দুদের উপর হামলা, তাদের সম্পত্তি ও মন্দিরের ওপর হামলা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি। শাহ উল্লেখ করেন যে, চরভাসান উপজেলায় ১০০ হিন্দু নারীকে ধর্ষণ করা হয়েছে এবং ২০০১ সালের অক্টোবরে ২০০ জন সংখ্যালঘু নারীকে গণধর্ষণ করা হয়েছে। তিনি আরো উল্লেখ করেন যে, ১৯৯০ সালের অক্টোবরে ৩০০ হিন্দুর ঘরবাড়িতে আগুন দেয়া হয়েছে লালমোহন উপজেলায় এক হাজার হিন্দু পরিবারের ওপর হামলা হয়েছে। এই সব ঘটনার কারণে সিএবি চালু করা উচিত এবং বাংলাদেশ থেকে যে সব নির্যাতিত হিন্দু ভারতে এসেছে, তাদের নাগরিকত্ব দেয়া উচিত।

এটা দুর্ভাগ্যজনক কিন্তু সত্যি যে বাংলাদেশে মাঝে মাঝে সংখ্যালঘুরা নির্যাতনের শিকার হয়েছে। এবং এই সব নির্যাতিতদের আশ্রয় দেয়ার সিদ্ধান্তকে অবশ্যই স্বাগত জানানো উচিত। কিন্তু প্রশ্ন হলো এই বিষয়টা কি এমনভাবে উপস্থাপন করা উচিত যেটা বাংলাদেশের মানুষকে আহত করবে এবং দীর্ঘমেয়াদে ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্কের ক্ষতি করবে? বাংলাদেশ বা প্রতিবেশী অন্য যেকোনো দেশ যদি তাদের পার্লামেন্টে আলোচনা করে যে, ভারতে মুসলিমরা নির্যাতিত হচ্ছে এবং দাঙ্গা ও ঘটনাপ্রবাহ থেকে সেটা স্পষ্ট, এবং এ বিষয়ে তারা যদি প্রস্তাব পাস করে, তাহলে ভারত কি এটা সহজভাবে নেবে? অবশ্যই নয়।

সমস্যা হলো বিজেপি বাংলাদেশের ব্যাপারে একটা রাজনৈতিক ভাষ্য তৈরি করছে, যেটা দুই দেশের গঠনমূলক সম্পর্কের জন্য ইতিবাচক নয়। এটা ঠিক যে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে দুই দেশের সম্পর্ক একটা চমৎকার জায়গায় অবস্থান করছে। কিন্তু সরকার পর্যায়ে সম্পর্ক যত ভালোই হোক না কেন, জনগণের পর্যায়ে সম্পর্কের ভিত্তি মজবুত না হলে সেটা টিকবে না। এই জনগণের সম্পর্কের জায়গাটাতেই সমস্যা তৈরি করছে বিজেপির আপত্তিকর রাজনৈতিক বক্তব্য। শাহ গত বছর অবৈধ বাংলাদেশী অভিবাসীদেরকে উঁইপোকা আখ্যা দিয়েছিলেন, যেটা নিশ্চিতভাবে বাংলাদেশের মানুষ ভালোভাবে নেয়নি। তিনি এবং বিজেপি এরপর আসামে ন্যাশনাল রেজিস্টার অব সিটিজেন্সের (এনআরসি) বিষয়টিকে অবৈধ বাংলাদেশ বিরোধী অভিযানে পরিণত করেছেন। আর এখন তিনি প্রকাশ্যে বাংলাদেশের বিগত সরকারগুলোর বিরুদ্ধে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর অত্যাচারের অভিযোগ আনলেন।

বিজেপি সরকার যদিও বারবার ঢাকাকে এনআরসি এবং এ সম্পর্কিত বিষয় নিয়ে আশ্বস্ত করে আসছে। কিন্তু নিজেদের বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে যে রাজনৈতিক ভাষায় তারা কথা বলছেন, সেটা নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে ক্ষোভের জন্ম দিয়েছে। এবং শাহ আর বিজেপির এটা জানা থাকা উচিত যে সরকার আসে, সরকার যায়, কিন্তু সমাজের মধ্যে কোন ক্ষতি হলে, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে সেটার প্রভাব থেকে যায় বহু বছর ধরে। বাংলাদেশ প্রাজ্ঞতার পরিচয় দিয়ে এনআরসি এবং সিএবি নিয়ে কূটনৈতিকভাবে নিরব থেকেছে। কিন্তু বিজেপির রাজনৈতিক ভাষ্য নিয়ে বাংলাদেশের জনগণ কতদিন চুপ থাকবে? আর সেটা কি বৃহৎ পরিসরে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ওপর প্রভাব ফেলবে? সময়ই বলে দেবে সে কথা।

পালাবদল/এমএম

 


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]