প্রতিরক্ষা
ভারতের দুই সেনা কর্মকর্তার নজিরবিহীন বিতর্ক
ভারতের দুই সেনা কর্মকর্তার নজিরবিহীন বিতর্ক





পালাবদল ডেস্ক
Sunday, Jul 4, 2021, 5:36 pm
 @palabadalnet

চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াত ও  বিমানবাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল আরকেএস ভাদাউরিয়া

চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াত ও বিমানবাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল আরকেএস ভাদাউরিয়া

নজিরবিহীনভাবে ভারতীয় বিমানবাহিনীর ভূমিকা নিয়ে বিতর্কে জড়ালেন দেশটির সেনাবাহিনীর দুই শীর্ষ পদাধিকারী। 

সীমান্ত পেরনো আক্রমণ ও নিরাপত্তা বিষয়ক এক সম্মেলনে একটি পর্বে চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াত মন্তব্য করেছিলেন, ভারতীয় বিমানবাহিনী হলো স্থলবাহিনীর সাহায্যকারী বাহিনী, ঠিক যেমন সেনাবাহিনীর মধ্যে সৈনিকদের সাহায্য করেন গোলন্দাজ বাহিনীর সদস্যরা বা ইঞ্জিনিয়াররা। 

তার এই মন্তব্য ছড়িয়ে পড়া মাত্র প্রতিক্রিয়া উঠে আসে যে, ভারতীয় বিমানবাহিনীর ভূমিকাকে খাটো করে দেখিয়েছেন চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ। শুক্রবার ওই সম্মেলনেই পরের এক পর্বে বক্তা ছিলেন ভারতীয় বিমানবাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল আরকেএস ভাদাউরিয়া। জেনারেল রাওয়াতের অভিমতের কার্যত বিরোধিতা করেই তিনি সেখানে বলেন, ভারতীয় বিমানবাহিনী মোটেই শুধু সাহায্যকারীর ভূমিকায় থাকে না। যেকোনো যুদ্ধে বিমানবাহিনী একটি বিরাট ভূমিকাই পালন করে। 

গ্লোবাল কাউন্টার-টেররিজম কাউন্সিল নামে একটি সংস্থা ছিল ওই সম্মেলনের আয়োজক। 

যুদ্ধক্ষেত্রে ভারতীয় সোনাবাহিনীর স্থল, নৌ ও বায়ু বিভাগের মধ্যে কোনো একটিরও ভূমিকা নিয়ে দুই শীর্ষ সেনা কর্মকর্তারর প্রকাশ্যে এমন মতপার্থক্যে জড়িয়ে পড়ার নজির নেই। স্বভাবতই জেনারেল রাওয়াত এবং এয়ার চিফ মার্শাল ভাদাউরিয়ার পরস্পরবিরোধী দৃষ্টিভঙ্গির এই বহিঃপ্রকাশের জেরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। প্রশ্ন উঠেছে, জেনারেল রাওয়াত কেন হঠাৎ ভারতীয় বিমানবাহিনীর ভূমিকাকে প্রকাশ্যে ছোট করে দেখাতে গেলেন। তার এই মন্তব্য ভারতীয় বিমানবাহিনীর মনোবলে চিড় ধরাতে পারে বলেও অভিমত উঠে এসেছে।

উল্লেখ্য, ভারতীয় সেনাবাহিনীতে স্থলবাহিনীর প্রধানই সেনাপ্রধান বলে বিবেচিত হতেন। বিজেপি কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন হয়ে চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ বলে একটি পদ তৈরি করেছে, যেটি এখন সেনাপ্রধানের পদ বলে চিহ্নিত। মোদি সরকার এই পদে প্রথম নিয়োগ করেছে জেনারেল রাওয়াতকে, যিনি নিজেও একসময়ে স্থলবাহিনীর প্রধান ছিলেন এবং সেই সুবাদে ভারতের সেনাপ্রধানের মর্যাদায় অধিষ্ঠিত ছিলেন। ওই পদ থেকে তার অবসরের সঙ্গে সঙ্গেই মোদি সরকার চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ নামক পদটি তৈরি করে এবং তাকে ওই পদে নিয়োগ করে। স্থলবাহিনীর প্রধান তথা সেনাপ্রধান থাকার সময়ে তিনি ক্রমাগত রীতি ভেঙে বিভিন্ন রাজনৈতিক বিষয়ে মন্তব্য করে গিয়েছেন, যেগুলি নিয়ে বিতর্ক ছড়িয়েছিল। অবশ্যই তার সেই সব মন্তব্য ছিল বিজেপির রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গির অনুসারী। 

সূত্রের খবর, ভারতীয় সেনাবাহিনীর তিন বিভাগকে যুক্ত করে একটি কম্যান্ড বা অধিনায়কত্বের ব্যবস্থা চালু করার পরিকল্পনার মধ্যেই নিহিত রয়েছে জেনারেল রাওয়াত ও এয়ার চিফ মার্শাল ভাদাউরিয়ার মধ্যে মতপার্থক্যের উৎস। বর্তমানে ভারতীয় সেনাবাহিনীর তিন বিভাগ স্থলবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমানবাহিনীর পরিচালন ব্যবস্থা পৃথক। প্রতিটি বিভাগের রয়েছে নিজস্ব কম্যান্ড, নিজস্ব সত্তা। 

মোদি সরকার এই তিন বিভাগের নিজস্ব সত্তার অবলুপ্তি ঘটিয়ে একটি একক কম্যান্ডের অধীনে নিয়ে আসার পরিকল্পনা করেছে, চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ হিসাবে যা রূপায়নের দায়িত্বে রয়েছেন জেনারেল রাওয়াত। এর কারণ হিসাবে বলা হচ্ছে, নির্দিষ্ট ভৌগলিক এলাকায় এক জন ক‌ম্যান্ডারের অধীনেই সেনাবাহিনীর তিন বিভাগ কাজ করলে নিরাপত্তা সংক্রান্ত চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করা যাবে আরও দক্ষতার সঙ্গে। 

কিন্তু অনেকের মতে, সাম্প্রতিক সময়ে লাদাখে চীনের সঙ্গে সীমান্ত-বিরোধ সামলাতে মোদি সরকার কার্যত ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে তো বটেই, কূটনৈতিক স্তরেও এই ব্যর্থতা স্পষ্ট ধরা পড়েছে। সেনাবাহিনীর তিন বিভাগের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব এর কারণ বলে সরকার এই ব্যর্থতার দায় এড়াতে চাইছে। তাই সেনাবাহিনীর তিন বিভাগকে একটি কম্যান্ডের অধীনে নিয়ে আসার পরিকল্পনা করেছে মোদি সরকার, যার পোশাকি নাম দেওয়া হয়েছে থিয়েটার কম্যান্ড। থিয়েটারে যেমন এক জন পরিচালকের নির্দেশে সংলাপ, আলো, সঙ্গীত ও সাজসজ্জার মিশেলে অভিনয় উপস্থাপিত হয়, এই কম্যান্ডেও তেমন এক জন কম্যান্ডোরের নির্দেশে সমন্বিত ভূমিকা পালন করবে স্থল, নৌ ও বিমানবাহিনী। 

তিন বিভাগের মধ্যেই এই পরিকল্পনা নিয়ে বিরূপ মনোভাব আছে বলে খবর। এমনকী গ্লোবাল কাউন্টার-টেররিজম কাউন্সিল আয়োজিত সম্মেলনে জেনারেল রাওয়াতের একটি মন্তব্যে তা বেরিয়েও এসেছে। তিনি সেখানে বলেছেন, ‘‘সবারই জানা আছে যে, পরিবর্তন করতে গেলে বাধা আসে। তা সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে এবং সেই অন্তর্নিহিত প্রতিরোধের সঙ্গে লড়তে হবে।’’ 

পাশাপাশি এয়ার চিফ মার্শাল শুধু যুদ্ধক্ষেত্রে বিমানবাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার কথাই স্মরণ করিয়ে দেননি, তিনি লাদাখে তার বাহিনীর সাফল্যের কথাও জোরের সঙ্গে বলেছেন ওই সম্মেলনে।- সংবাদসংস্থা

পালাবদল/এমএ


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2020
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৫১, সিদ্ধেশ্বরী রোড, রমনা, ঢাকা-১২১৭
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৫১, সিদ্ধেশ্বরী রোড, রমনা, ঢাকা-১২১৭
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]