মঙ্গলবার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬
 
দক্ষিণ এশিয়া
তালেবানকে ইরানের সমর্থন, টার্গেটে আফগানিস্তানের মার্কিন সেনা
তালেবানকে ইরানের সমর্থন, টার্গেটে আফগানিস্তানের মার্কিন সেনা





ওয়াশিংটন পোস্ট
Wednesday, Jan 22, 2020, 11:17 am
 @palabadalnet

যুক্তরাষ্ট্র-ইরান উত্তেজনা বৃদ্ধি পাওয়া মানে ওয়াশিংটন ও তেহরানের মধ্যকার পরবর্তী প্রক্সি যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত হতে পারে আফগানিস্তান (যার সাথে ইরানের অভিন্ন সীমান্ত রয়েছে)। আর এই সঙ্ঘাত তালেবানের সাথে চুক্তি করার মাধ্যমে আমেরিকান সৈন্যবাহিনী হ্রাস করার ট্রাম্প প্রশাসনের পরিকল্পনা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার হুমকির মধ্যে ফেলতে পারে।

প্রশাসনিক কর্মকর্তারা সম্প্রতি আফগানিস্তানে ইরানি কার্যক্রম সম্প্রসারিত হওয়ার আশঙ্কার ব্যাপারে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছন। সূত্র জানিয়েছে, গোয়েন্দা মহলে তালেবানকে তেহরানের সমর্থন দানের বিষয়টি জানা কথা।

ইরানের মাশাদে সক্রিয় তালেবানের সাথে ও পাকিস্তানের কোয়েটায় অবস্থানরত তাদের গ্রুপের সদস্যদের মধ্যকার যোগাযোগের যেসব তথ্য পাওয়া গেছে, তাতে দেখা যায়, আফগানিস্তানে তালেবানের হামলায় ইরানি সম্পৃক্ততা রয়েছে। একটি সূত্র ওয়াশিংটন পোস্টকে এ ধরনের তথ্যই দিয়েছে।

৯/১১-পরবর্তী আমলে আফগানিস্তানে ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থ ছিল সমান্তরাল। উভয়ই তালেবানের বিরোধিতা করে কাবুলে তালেবানবিরোধী সরকারের প্রতি সমর্থন ব্যক্তি করেছিল। কিন্তু আঞ্চলিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ওই পরিস্থিতি এখন বদলে গেছে।

অনেকে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে, চলতি মাসের প্রথম দিকে ইরানি জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যা করার জন্য পরিচালিত মার্কিন ড্রোন হামলার জবাবে আফগানিস্তানে উত্তেজনা বাড়াতে পারে ইরান। তারা কাজটি করতে পারে দু’ভাবে। প্রথমত, আমেরিকান সৈন্যদের ওপর হামলা চালিয়ে, দ্বিতীয়ত, তালেবান ও ওয়াশিংটনের মধ্যকার বর্তমান জটিল আলোচনা ভণ্ডুল করে দেয়ার মাধ্যমে।

ইউএস ইনস্টিটিউট অব পিসের সিনিয়র উপদেষ্টা রিচার্ড ওলসন বলেন, আফগানিস্তান যদি যুক্তরাষ্ট্র-ইরান সঙ্ঘাতের ভেন্যুতে পরিণত হয়, তবে তখন মার্কিন বাহিনী প্রত্যাহার করা কঠিন হয়ে পড়বে। তালেবানের সাথে শান্তিচুক্তি করা যুক্তরাষ্ট্রের জন্য সত্যিই কঠিন হয়ে যাবে।

ওলসন বলেন, আফগানিস্তানে সহিংসতা সৃষ্টির মতো শক্তি আছে ইরানের। তাদের হাতে কেবল শিয়া মুসলিম আফগানই নয়, বরং সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সিরিয়ায় যুদ্ধ করার জন্য যে পাকিস্তানি যোদ্ধাদের নিয়ে গঠিত ইরানি বিশেষ বাহিনীকে প্রশিক্ষণ দিয়েছিল, তারাও আছে।

তার সাথে আছে ইরান-তালেবান সংযোগ। ওলসন বলেন, গত এক দশক ধরে তালেবানের সাথে সম্পর্ক রক্ষা করে চলেছে ইরান। তিনি বলেন, ২০১৬ সালে আফগান তালেবান নেতা মোল্লা আখতার মোহাম্মদ মনসুর ইরান থেকে পাকিস্তানের কোয়েটার ফেরার পথেই মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত হন।

এমন সম্ভাবনা এখন আছে যে তালেবানের ওপর প্রভাব বাড়ানোর চেষ্টা করবে ইরান।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মোহাম্মদ কোরেশি শুক্রবার ওয়াশিংটনে পাকিস্তান দূতাবাসে সাংবাদিকদের বলেন যে আফগানিস্তানে ইরানি প্রভাব নিয়ে অবশ্যই উদ্বেগ রয়েছে। ওয়াশিংটন ও তেহরানের মধ্যকার পরবর্তী যুদ্ধ ক্ষেত্র হতে পারে আফগানিস্তান।

গত সপ্তাহে ওয়াশিংটন যাওয়ার আগে কোরেশি তেহরান সফর করেন। তিনি আফগানিস্তানের ব্যাপারে না জড়ানোর জন্য ইরানি নেতাদের হুঁশিয়ারি করে দিয়েছেন। তিনি বলেন, তা কারো স্বার্থেই হবে না।

তবে অন্যরা বলছেন, ইতোমধ্যেই অনেক দেরি হয়ে গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত হোসাইন হাক্কানি দি টাইমসকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রকে যন্ত্রণা দিতেই তালেবানকে সমর্থন দিচ্ছে ইরান। ইরান মনে করে, আফগানিস্তান হতে পারে এমন এক যুদ্ধক্ষেত্র, যেখানে তারা আমেরিকার ক্ষতিসাধন করতে পারে।

সতর্কতা অবলম্বন

সোলাইমানিকে হত্যার প্রেক্ষাপটে প্রক্সি যুদ্ধ ত্বরান্বিত হওয়ার আশঙ্কার বিষয়টি নিয়ে সতর্কতা অবলম্বন করেছিল ট্রাম্প প্রশাসন। তিনি ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে ইরানি প্রতিশোধমূলক হামলার পর বলেছিলেন, কোনো মার্কিন সৈন্য নিহত হয়নি। তিনি আর কোনো সামরিক সঙ্ঘাতের আশঙ্কাও নাকচ করে দিয়েছিলেন।

কিন্তু আফগানিস্তানের পরিস্থিতি বেশ জটিল হয়ে পড়েছে। ইরানি কর্তৃপক্ষ যে তালেবানের সাথে সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ করছে, তা নিয়ে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছিলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেইও। তিনি বলেছিলেন, এমন সম্পর্ক আফগানিস্তান শান্তিপ্রক্রিয়াকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

এদিকে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি বলেছেন, তার দেশ আঞ্চলিক সঙ্ঘাতের ক্ষেত্র হওয়া উচিত নয়।

ওলসনও বলেছেন, পাকিস্তান ও যুক্তরাষ্ট্রের উচিত হবে আফগানস্তান যাদে সঙ্ঘাতের ক্ষেত্রে পরিণত না হয়, তা নিশ্চিত করা।

পালাবদল/এমএম


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]