রাজনীতি
ইভিএম নয়, স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে সিটি নির্বাচন দাবি ফখরুলের
ইভিএম নয়, স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে সিটি নির্বাচন দাবি ফখরুলের





নিজস্ব প্রতিবেদক
Sunday, Jan 19, 2020, 10:23 pm
Update: 19.01.2020, 10:25:47 pm
 @palabadalnet

ঢাকা: সিটি নির্বাচনে ইভিএম নয়, স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে ভোটগ্রহণের দাবি জানিয়েছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

রোববার বিকালে এক আলোচনা সভায় বিএনপি মহাসচিব এই দাবি জানান।

তিনি বলেন, ‘‘ইভিএম দিয়েছে, নতুন একটা কৌশল। আমরা পরিস্কার করে বলেছি, এই ইভিএম ছুঁড়ে ফেলে দিতে হবে। এই ইভিএম দিয়ে নির্বাচন হবে না। স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে নির্বাচন করতে হবে এবং সেই দাবি আমাদের আদায় করে নিতে হবে। আমি বলতে চাই, আমরা যদি ঐক্যবদ্ধ হই, আমরা যদি সমস্ত মানুষকে সংগঠিত করতে পারি তাহলে এই নির্বাচনে (সিটি করপোরেশন) অবশ্যই আমরা তাদেরকে পরাজিত করে বিজয় ছিনিয়ে আনতে পারবো।”

দলের নেতা-কর্মীদের সংগঠিত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘‘আসুন আমরা আগামী দিনগুলোতে নিজকে আরো সংঘবদ্ধ করি, প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আদর্শে উদীপ্ত হয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অনুপ্রেরণায় আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যাই।”

‘‘পরাজিত করি এই দানবকে। এই দানবকে পরাজিত হবে দেশে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা, দেশনেত্রীর বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি এবং জনগনের মুক্তির জন্য আমরা সেই আন্দোলনের দিকে এগিয়ে যাই।”

আওয়ামী লীগের গণতন্ত্র বিরোধী কর্মকাণ্ড তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘‘আওয়ামী লীগ সবসময়ই গণতন্ত্রকে ধ্বংস করেছে। ১৯৭২-১৯৭৫ সালে তারা গণতন্ত্র বিরোধী কাজ করেছে, একদলীয় শাসনব্যবস্থা বাকশাল প্রতিষ্ঠা করেছিলো। আজকে আবার ২০০৮ সালে ক্ষমতায় আসার পর থেকে অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে প্রত্যেকটি গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানকে ভেঙে দিয়ে, রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠানগুলোকে ভেঙে দিয়ে তারা একদলীয় শাসনব্যবস্থা ভিন্ন আঙিকে প্রতিষ্ঠা করেছে। আজকে প্রশাসনকে দলীয়করণ করেছে, সংবাদপত্রের গলাটিপে ধরেছে এবং বিচার বিভাগকে তারা করায়ত্ব করে নিয়েছে।”

‘‘এখান থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যে আদর্শ, সেই আদর্শ বাস্তবায়নে করতে হলে বাংলাদেশের জাতীয়তাবাদের যে দর্শন, সেই দর্শনকে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে, গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করতে হলে আমাদের আন্দোলনের মধ্য দিয়ে এই যে নব্য স্বৈরাচার, নব্য একনায়কতন্ত্রের যে আওয়ামী লীগ তাকে পরাজিত করে আমাদের গণতান্ত্রিক শাসন প্রতিষ্ঠা করতে হবে।”

শহীদ জিয়ার কর্মময় জীবন তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘‘জিয়াউর রহমান একাই যথেষ্ট। তার যে দর্শন, তার যে আদর্শ তাকে যদি আমরা অনুসরণ করি তাহলে আমাদের আর অন্য কোনো দিকে তাকাতে হবে না। স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব-গণতন্ত্র-উন্নয়ন সবগুলো জিনিসকে নিয়ে তিনি যে আমাদের সামনে যে দর্শন দিয়ে গেছেন, সেই দর্শককে প্রতিষ্ঠা আমাদেরকে করতে হবে।”

‘‘আজকে বিএনপির দায়িত্ব অনেক, আমাদের যুবকদের দায়িত্ব অনেক, আমাদের তরুনদের দায়িত্ব অনেক বেশি পড়ে গেছে।এই ভয়াবহ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে হলে আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যাকে আমরা গণতন্ত্রের মাথা বলছি, তাকে যদি মুক্ত করতে হয়, গণতন্ত্রকে যদি মুক্ত করতে হয়, আমাদের তরুন নেতা তারেক রহমানকে যদি দেশে ফিরিয়ে আনতে হয় তাহলে দূর্বার গণআন্দোলন সৃষ্টি করা ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।”

রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে বিএনপির উদ্যোগে দলের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮৪তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সকালে বিএনপি মহাসচিবের নেতৃত্বে নেতা-কর্মীরা শেরে বাংলানগরে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরের পুস্পমাল্য অর্পন করে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘‘ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান একজন রাজনীতি, তিনি একজন দুরদৃষ্টি সম্পন্ন রাজনীতিবিদ ও রাষ্ট্র নায়ক –এটার প্রমাণ রেখে গেছেন বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের ভিত্তিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদ দল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে। যেই এখনো বাংলাদেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় দল। এখন প্রশ্ন হচ্ছে এই সময়ে শহীদ জিয়াউর রহমান সমন্ধে এই আওয়ামী লীগকে ইতিহাস বিকৃত করার কেন এতো চেষ্টা এতো প্রয়াস আমরা দেখতে পাই ?”

‘‘যেহেতু আওয়ামী লীগ জানে, জিয়াউর রহমানের সফলতাগুলো যদি মানুষের সামনে চলে আসে, বর্তমান প্রজন্মের সামনে চলে আসে তাহলে আওয়ামী লীগে যেসব মিথ্যাচার করে রাজনীতি করছে তাদেরগুলো কেউ বিশ্বাস করবে না। তাই আজকে গায়ের জোরে মিথ্যাচার করে আওয়ামী লীগ ইতিহাসকে বিকৃত করছে আজকে জিয়াউর রহমানকে, তার পরিবারের সদস্যদেরকে, বিএনপিকে নানাভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য তারা উঠে পড়ে লেগেছে। সেখা্নেই প্রমাণিত যে তারা (আওয়ামী লীগ) নিশ্চয়ই দূর্বল। এই সকল ক্ষেত্রগুলো আওয়ামী লীগ সেখানে ব্যর্থ হয়েছে জিয়াউর রহমান সেখানে সফল হয়েছে, বেগম খালেদা জিয়া, বিএনপি সফল হয়েছে। এগুলো যদি প্রজন্মের কাছে চলে আসে তাহলে আওয়ামী লীগের রাজনীতি থাকে না। সেজন্য মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে তারা ইতিহাস বিকৃত করছে।”

‘জিয়ার বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের এই ইতিহাস বিকৃতি সফল হবে না’ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, ‘‘যেই বাকশাল মরহুম শেখ মুজিবর রহমান সাহেব কায়েম করে চেয়েছিলেন সেই বাকশালকে অন্য উপায়ে আমাদেরকে কাছে উপস্থাপন করছে এখন। খুন হলে কথা বলা যাবে না, জখম হলে কথা বলা যাবে না, মারলে কথা বলা যাবে না, ডাকাতি হলে কথা বলা যাবে না। বাংলাদেশ থেকে ৮ হাজার কোটি টাকা, শেয়ার মার্কেটের কয়েক হাজার কোটি টাকা লুট হয়ে গেলো-কথা বলা যাবে না। বাকশালী চরিত্র স্পষ্ট হয়ে উঠছে দিন দিন জনগনের কাছে।”

‘‘যদি এদেশের জনগণ রুখে না দাঁড়ায়, যদি বাংলার মানুষ রুখে না দাঁড়ায়, যদি বিএনপি রুখে না দাঁড়ায় এদেশের স্বাধীনতা থাকবে না। আজকে শহীদ রাষ্ট্রপতির জন্মবার্ষিকীতে দেশের প্রত্যেকটা নাগরিককে জিয়াউর রহমান হয়ে যেতে হবে নইলে এদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা যাবে না।”

মহাসচিবের সভাপতিত্বে এবং শহীদ উদ্দিন চৌধুরী ও আমিরুল ইসলাম খান আলিমের পরিচালনায় আলোচনা সভায় স্থায়ী কমিটির সদস্য জমিরউদ্দিন সরকার, আবদুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান এজেডএম জাহিদ হোসেন, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক মাহবুবউল্লাহ বক্তব্য রাখেন।

এছাড়া অঙ্গসংগঠনের মধ্যে যুব দলের সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, মহিলা দলের জেরিন খান, স্বেচ্ছাসেবক দলের মোস্তাফিজুর রহমান, ছাত্র দলের ইকবাল হোসেন শ্যামল, উলামা দলের শাহ নেছারুল হক, মৎস্যজীবী দলের আবদুর রহীমও বক্তব্য দেন। 

অনুষ্ঠানে সিরাজ উদ্দিন আহমেদ, এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, নুরী আরা সাফা, মাহবুবুল হক নান্নু, মাশুকুর রহমান মাশুক, সেলিমুজ্জামান সেলিম, হায়দার আলী লেলিন, তকদীর হোসেন জসিম, রফিক শিকদার, আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, বিলকিস ইসলাম, ফরিদা ইয়াসমীন, কাজী মনিরুজ্জামান মনির, রফিকুল ইসলাম মাহতাব, আকরামুল হাসান প্র্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পালাবদল/এমএম


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]