বুধবার ১৬ অক্টোবর ২০১৯ ১ কার্তিক ১৪২৬
 
সারাবাংলা
অমিত সাহাকে মামলায় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে: আবরারের বাবা
অমিত সাহাকে মামলায় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে: আবরারের বাবা





কুষ্টিয়া প্রতিনিধি
Wednesday, Oct 9, 2019, 3:09 pm
Update: 09.10.2019, 9:46:18 pm
 @palabadalnet

জিলা স্কুল প্রাঙ্গণে কুষ্টিয়ায় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ।

জিলা স্কুল প্রাঙ্গণে কুষ্টিয়ায় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ।

কুষ্টিয়া: বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদের বাবা বরকত উল্লাহ প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ করেছেন, তার সন্তানকে কীভাবে মেরে ফেলা হয়েছে, তিনি যেন তা দেখেন। আজ বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় কুষ্টিয়া জিলা স্কুলে গণমাধ্যমের কাছে তিনি এই অনুরোধের কথা তুলে ধরেন।

আবরারের বাবা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর পিতা-মাতাকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। উনি তো এই জ্বালা জানেন। আমার সন্তানকেও নৃশংসভাবে হত্যা করেছে। সন্তানকে যেভাবে মারেচে দেখলিপারে, উনি (প্রধানমন্ত্রী) যদি নিজে দেখেন তাহলে উনি নিজেই বিচার করবেন।’

সকালে জিলা স্কুলে আবরারের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মাহফিল শেষে তিনি এ মন্তব্য করেন। জিলা স্কুলের ২০১৫ সালের এসএসসি ব্যাচের ছাত্র ছিলেন আবরার। তার সহপাঠী ও জিলা স্কুল কর্তৃপক্ষের আয়োজনে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

মামলার অগ্রগতি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যতটুকু দেখছি, তাতে আমি খুশি। আরও চাই, যাতে সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের সর্বোচ্চ সাজা নিশ্চিত হয়।’

তবে বুয়েট বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এখনো পর্যন্ত তার সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেনি বলে গণমাধ্যমের কাছে অভিযোগ করেন বরকত উল্লাহ্‌।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ‘অমিত সাহা নামে একজনের কক্ষে আমার ছেলেকে নির্যাতন করা হয়েছে। তার নামটা এজাহারে আসে নাই। গতকাল (মঙ্গলবার) মামলার তদন্ত কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ হয়েছে, তাকে বলেছি অমিত সাহাকে মামলায় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। উনি (তদন্ত কর্মকর্তা) বলেছেন, তদন্ত করে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।’

কুষ্টিয়া স্কুল জামে মসজিদে দোয়া অনুষ্ঠানে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান, জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক এফতে খাইরুল ইসলাম, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাইনুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ভারতের সঙ্গে চুক্তির বিরোধিতা করে শনিবার বিকালে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন ফাহাদ। এর জের ধরে রোববার রাতে শেরেবাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে ডেকে নিয়ে তাকে পিটিয়ে হত্যা করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। পরে তার লাশ সিঁড়িতে ফেলে রাখা হয়।

এ ঘটনায় আবরারের বাবা ১৯ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের ১১ জনকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করে কেন্দ্রীয় কমিটি।

পালাবদল/এসএ


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]