দক্ষিণ এশিয়া
কর্তৃত্ব শক্ত করছেন শক্তিধর গোতাবায়া রাজাপাকসে
কর্তৃত্ব শক্ত করছেন শক্তিধর গোতাবায়া রাজাপাকসে





দি অস্ট্রেলিয়ান
Saturday, Dec 7, 2019, 2:02 am
Update: 07.12.2019, 2:03:26 am
 @palabadalnet

আগামী মার্চে আগাম নির্বাচনে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কা। দেশটির নতুন প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে পার্লামেন্ট মুলতবি করার সিদ্ধান্ত নেয়ায় আগাম নির্বাচনের দিকে যাচ্ছে দেশটি। নতুন প্রেসিডেন্ট এরই মধ্যে তার প্রতিপক্ষ এবং সমালোচকদের বিরুদ্ধে কঠোর হতে শুরু করেছেন এবং এটা নিয়ে মানুষের মধ্যে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে।

সাবেক এই প্রতিরক্ষা সচিব যিনি এখন সংখ্যালঘু সরকারের নেতৃত্ব দিচ্ছেন, তিনি পার্লামেন্টে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের চেষ্টা করছেন বলে অনেকের বিশ্বাস। প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা সীমিত করার জন্য এবং তার মেয়াদ নিয়ে যে সব আইন পাস করা হয়েছে, সেগুলো বাতিল করার জন্য এই সংখ্যাগরিষ্ঠতা তার প্রয়োজন। বর্তমান আইন অনুসারে দুই মেয়াদে প্রেসিডেন্ট হতে পারবেন একজন ব্যক্তি।
 
রাজাপাকসের শ্রীলঙ্কা ফ্রিডম পার্টির নেতৃত্বাধীন জোটের কমপক্ষে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা দরকার যাতে সংবিধান সংশোধন এবং ১৯তম সংশোধনী পাল্টে দেয়া যায়। বিগত সরকার এই সংশোধনীটি পাস করে প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা কমিয়ে এনেছিল এবং সরকারকে পার্লামেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর কাছে দায়বদ্ধ রাখার চেষ্টা করেছিল।

তিনি এই সংশোধনীর বিরোধিতা করে বলেছেন যে, সুশাসনের পথে এটি একটি বাধা। তিনি বলেছেন, “কোন দেশকে সফলভাবে শাসন করতে গেলে, স্থিতিশীলতা প্রয়োজন। স্থিতিশীলতা ছাড়া বিনিয়োগকারীরা এখানে আসবে না”।

৭০ বছর বয়সী রাজাপাকসে গত মাসে দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন। তার দলের সরকারের পতনের পাঁচ বছরেরও কম সময় পরে এবং শ্রীলঙ্কায় ইস্টার সানডেতে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার সাত মাসের মাথায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে এই জয়লাভ করলেন তিনি। ওই সন্ত্রাসী হামলায় ২৬৯ জন মানুষ নিহত হয়।

প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব গ্রহণের কয়েকদিনের মধ্যেই তার ভাই ও সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দা রাজাপাকসেকে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ দেন তিনি এবং একজন শীর্ষ পুলিশ ডিরেক্টরের পদ নামিয়ে দেন। ওই পুলিশ কর্মকর্তা রাজাপাকসের পরিবারসহ উচ্চ পর্যায়ের অপরাধী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে তদন্তের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন।

নাগরিক অধিকার গ্রুপগুলো বলছে, সামরিক গোয়েন্দা কর্মকর্তারা এখনই তামিল সংখ্যাগুরু উত্তরাঞ্চলে সক্রিয় বেসরকারী সংস্থাগুলো, তাদের কাজ ও অর্থায়নের উৎস নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন। তার প্রতিপক্ষের প্রেসিডেন্ট প্রার্থীকে সমর্থন করেছিলেন, এমন বেশ কয়েকজন সাংবাদিককে এরই মধ্যে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে অপরাধ তদন্তকারীরা।

গত মাসের শেষের দিকে ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশান ডিপার্টমেন্টের ৭০৪ জন কর্মকর্তার দেশত্যাগের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। রাজাপাকসে সরকারের সময় যে সব হত্যাকাণ্ড হয়েছে, সেগুলোর তদন্তে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন যিনি, সেই নিশান্থা সিলভাকে হত্যার হুমকি দেয়ার পর তিনি সুইজারল্যান্ডে রাজনৈতিক আশ্রয় প্রার্থনা করেন। তার এই সিদ্ধান্তের পরই অন্যান্য কর্মকর্তাদের দেশত্যাগের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হলো।

সিলভা যে সব মামলার তদন্ত করছিলেন, তার মধ্যে সানডে লিডার পত্রিকার সম্পাদক লাসান্থা বিক্রমাতুঙ্গের হত্যাকাণ্ডটিও ছিল। ২০০৯ সালে কথিত একটি ঘাতক স্কোয়াড তাকে হত্যা করে বলে অভিযোগ রয়েছে।

এই মামলার সাথে গোতাবায়া রাজাপাকসের সংযোগ রয়েছে বলে দীর্ঘদিন ধরে বলা হয়েছে। প্রতিরক্ষা সচিব থাকাকালে তিনি সামরিক ডেথ স্কোয়াড পরিচালনা করতেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তিনি অবশ্য এই অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছেন।

গত সপ্তাহে, সুইস পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায় যে, তাদের শ্রীলঙ্কা দূতাবাসের এক স্থানীয় নারী কর্মচারিকে কলম্বোতে অপহরণ করে তার কাছে স্পর্শকাতর তথ্য জানতে চাওয়া হয়। ওই নারী কর্মচারি সিলভার ভিসা প্রক্রিয়াজাতকরণের সাথে যুক্ত ছিলেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

শ্রীলঙ্কার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই দাবি নাকচ করে দিয়ে, ওই নারীকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে এবং তার দেশ ত্যাগের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। মন্ত্রণালয় দাবি করেছে, যাতে ওই কর্মচারি সিআইডির সামনে উপস্থিত হয়ে জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হয়।

পালাবদল/এমএম


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]