বিদেশ
‘হাজার বছরের’ সর্বোচ্চ বৃষ্টিতে চীনে ১২ মৃত্যু
‘হাজার বছরের’ সর্বোচ্চ বৃষ্টিতে চীনে ১২ মৃত্যু





পালাবদল ডেস্ক
Wednesday, Jul 21, 2021, 1:12 pm
Update: 21.07.2021, 1:19:07 pm
 @palabadalnet

রেকর্ড ভাঙা বৃষ্টিতে চীনের মধ্যাঞ্চলের বেশ কয়েকটি শহর তলিয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত ১ লাখের বেশি মানুষকে নিরাপদে সরিয়ে নেয়া সম্ভব হলেও মারা গেছেন ১২ জন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, বুকসমান পানি পার হয়ে সাধারণ মানুষ নিরাপদে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। রাস্তাঘাট, ট্রেন স্টেশন সব পানির নিচে চলে গেছে।

শনিবার সন্ধ্যা থেকে মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত ৬১৭ দশমিক এক মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে যাকে আবহাওয়াবিদরা এক হাজার বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত বলে অভিহিত করেছেন।

এ পরিমাণ বৃষ্টি ওই অঞ্চলের বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাত ৬৪০ দশমিক আট মিলিমিটারের প্রায় সমান।

এবার চীনের মধ্যাঞ্চলে অস্বাভাবিকরকম সক্রিয় বর্ষকাল দেখা যাচ্ছে। এতে হুয়াং হি নদীর অববাহিকার অনেকগুলো নদীর পানি দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছে। শনিবার থেকে শুরু হওয়া টানা বৃষ্টিতে হেনান প্রদেশের লাখ লাখ মানুষের জীবন ওলটপালট হয়ে গেছে।

প্রদেশটির বহু শহরের রাস্তা পানিতে তলিয়ে গেছে। বহু জলাধার ও বাঁধের পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করার পর্যায়ে চলে এসেছে।

বৃষ্টিতে এক রাতের মধ্যে ঝাংঝৌয়ের পশ্চিমে লুওইয়াং শহরের ইহিথান বাঁধে পানি বিপৎসীমার ২০ মিটার উপরে চলে এসেছে এবং বাঁধটি ‘যে কোনো সময় ধসে পড়তে পারে’ বলে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

ঝাংঝৌয়ের বন্যা নিয়ন্ত্রণ সদরদপ্তর জানিয়েছে, নগরীর গৌজাজুই জলাধারের পানি উপচে পড়েছে।  

বুধবার রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশনে পরিস্থিতি নিয়ে দেওয়া এক বিবৃতিতে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বলেছেন, “কিছু নদীর পানি পর্যবেক্ষণ সীমা অতিক্রম করেছে, কিছু বাঁধ ভেঙে গেছে, এতে বহু হতাহত ও সম্পদহানি হয়েছে। পাশাপাশি কিছু রেলওয়ে পরিষেবা বন্ধ হয়ে গেছে এবং ফ্লাইট বাতিল হয়েছে।”

বন্যা প্রতিরোধের চেষ্টা ‘অত্যন্ত কঠিন হয়ে পড়েছে’ বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

তিন দিন ধরে ঝাংঝৌতে যে পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়েছে তা ‘হাজার বছরে একবার’ দেখা যায়, আবহাওয়াবিদরা এমন কথা বলেছেন বলে তাদের উদ্ধৃত করে জানিয়েছে স্থানীয় গণমাধ্যম। 

মঙ্গলবার থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আসা বিভিন্ন ভিডিওতে দেখা গেছে, পাতাল রেলের ভেতরে যাত্রীরা বুক সমান পানির মধ্যে দাঁড়িয়ে আছেন আর ভূগর্ভস্থ স্টেশনগুলো উথালপাথাল পুকুরে পরিণত হয়েছে।

বুধবার ঝাংঝৌয়ের পরিবহন ব্যবস্থা অচল হয়ে ছিল, ব্যাপক জলবদ্ধতার মধ্যে স্কুল ও হাসপাতালগুলো বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে বলে রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার থেকে কয়েকটি কিন্ডারগার্টেন স্কুলে কিছু শিশু আটকা পড়ে আছে।

প্রদেশটিতে আগামী তিন দিন পর্যন্ত বৃষ্টি অব্যাহত থাকতে পারে বলে বুধবার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে।  

পালাবদল/এমএ

পালাবদল/এমএ


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2020
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৫১, সিদ্ধেশ্বরী রোড, রমনা, ঢাকা-১২১৭
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৫১, সিদ্ধেশ্বরী রোড, রমনা, ঢাকা-১২১৭
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]