স্বাস্থ্য
কাটাছেঁড়াই ছাড়াই হৃদরোগের চিকিৎসা হচ্ছে দেশে
কাটাছেঁড়াই ছাড়াই হৃদরোগের চিকিৎসা হচ্ছে দেশে





সৈয়দ মাহবুব মোর্শেদ, পালাবদল ডটনেট
Monday, Sep 28, 2020, 6:56 pm
Update: 28.09.2020, 7:03:02 pm
 @palabadalnet

ঢাকা: কাটাছেঁড়া ছাড়াই হৃদরোগের জটিল চিকিৎসা সারা বিশ্বের মত এখন বাংলাদেশেও সম্পন্ন হচ্ছে। এর পাশাপাশি যোগ হয়েছে হাইব্রিড চিকিৎসা। আর এসব ক্ষেত্রে দেশের হৃদরোগ চিকিৎসকরাও সফলতা দেখাচ্ছেন। এতে করে একদিকে দেশেই হৃদরোগের চিকিৎসায় ভরসা পাচ্ছেন রোগীরা। পাশাপাশি চিকিৎসা ব্যয়ও কমছে তাদের। 

বিশ্বে মৃত্যুর একক কারণ হিসেবে কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ বা হৃদরোগের অবস্থান শীর্ষে।  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিওএইচও) হিসাব অনুযায়ী, বিশ্বে প্রতিবছর এক কোটি ৭৯ লক্ষ মানুষ হৃদরোগে মারা যায় (মোট মৃত্যুর ৩১%)।  কেবল ট্রান্সফ্যাট গ্রহণের কারণেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায় ২ লক্ষ ৫০ হাজার মানুষ।  বাংলাদেশে প্রতিবছর ২ লক্ষ ৭৭ হাজার মানুষ হৃদরোগে মারা যায়, যার ৪.৪১ শতাংশের জন্য দায়ি ট্রান্সফ্যাট। এছাড়া জন্মগত হৃদরোগ, রক্তনালির সংকোচন বা রক্তনালির রোগ, জিনগত ত্রুটি ইত্যাদি কম বয়সে হার্ট অ্যাটাকের কারণ হতে পারে। এ ছাড়া অল্প বয়সে মুটিয়ে যাওয়া, কম বয়সে উচ্চ রক্তচাপ বা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়া, ধূমপানের অভ্যাস, মানসিক চাপ অল্প বয়সে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিচ্ছে। 

হৃদরোগ চিকিৎসায় সুসংবাদ

হৃদরোগ চিকিৎসকায় দেশে মানুষ কথায় কথায় ছুটে যান আশপাশের দেশগুলিতে। কেমন যেন ভরসা পান না তারা বাংলাদেশে। তবে অবস্থা অনেক পাল্টেছে। কারণ বিশ্বের অনেক আধুনিক চিকিৎসা পদ্ধতি এখন দেশেই হচ্ছে। 

এ ব্যাপারে কার্ডিওথোরাসিক ও ভাসকুলার সার্জারির সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. সোহেল আহমেদ পালাবদল ডটনেটকে জানান, দেশে কার্ডিওভাসকুলার সার্জারি অর্থাৎ হার্ট ও রক্তনালির সার্জারির ক্ষেত্র খুবই উন্নত হচ্ছে। 

ডা. সোহেল আহমেদ জানান, কার্ডিয়াক সার্জারির ক্ষেত্রে সামনের দিনগুলোতে রয়েছে নাটকীয় উন্নতি। যা একজন সার্জনকে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে নিয়ে যাচ্ছে অভূতপূর্ব নতুন নতুন পদ্ধতি দিকে। তারা এখন এসব বিষয়ে পাচ্ছেন প্রশিক্ষণ। আর দক্ষতা অর্জনের আবিরত সুযোগ।

ইসকেমিক  হার্ট ডিজিসে হার্টের নিজস্ব পুষ্টি ও অক্সিজেনের জন্য কিছু রক্তনালি থাকে। যার মাধ্যমে হার্ট তার পুষ্টি ও রক্ত সরবরাহ করে এবং তার পাম্পিং গুণকে চালিয়ে নিয়ে যায়। এ রক্তনালিতে যদি কোনো রোগ হয়, যেমন রক্তনালি স্পাজম হতে পারে, রক্তনালিতে প্লাক জমতে পারে, কোলেস্টেরল জমে যেতে পারে, ব্লক হতে পারে, আর যখনই ব্লক হয়, তখন বুকে ব্যথা হয়। হার্টের রক্তনালিতে ব্লকজনিত যে সমস্যার জন্য বুকে ব্যথা হয়, তাকে বলা হয় ইসকেমিক হার্টের রোগ।

ডা. সোহেল আহমেদ বলেন, ইসকেমিক হার্ট ডিজিস আমাদের জন্য একটি বিশাল চ্যালেঞ্জ। হৃৎপিণ্ডে রক্ত চলাচল কমে যাবার কারণে আক্রান্ত রোগীর ক্ষেত্রে বলা হয় ইসকেমিক  হার্ট ডিজিস।  এতে হার্টের সাথে সর্ম্পক্ত রক্ত চলাচলে অনেক রক্তনালি বন্ধ হয়ে যায়। ইসকেমিক  হার্ট ডিজিসে প্রতি বছর বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে হাজার হাজার মানুষ মারা যায়। একিউট মায়োকার্ডিয়াল ইনফার্কশন অর্থাৎ হৃদরোগে আক্রান্তে রোগীকে পিসিআই অথবা বাইপাস সার্জারি খুব জরুরি হয়ে পড়ে। আর হৃদরোগ বা আবার হার্ট অ্যাটাকের পর যখন হার্টের নিলয় যা হার্টের একটা চেম্বার, তা ক্ষতিগগ্রস্ত হয়। তখন সেক্ষেত্রে কাটাছেঁড়া প্রয়োজন হয়।

আরো জানা গেছে, কার্ডিয়াক ট্রান্সপ্ল্যান্ট ও মেকানিকাল সার্কুলেটরি সাপোর্ট চিকিৎসা প্রদ্ধতি এখন দেশে এসে গেছে। ডা. সোহেল জানান, কার্ডিয়াক ট্রান্সপ্ল্যান্ট ও মেকানিকেল সার্কুলেটরি সাপোর্ট কার্ডিয়াক ফেইলিউর রোগীদের জন্য এক নতুন দিগন্ত সূচনা করেছে। টোটাল আর্টিফিশিয়াল হার্ট এখন ব্রিজ টু ট্রান্সপ্লান্ট, যাদের হৃদকম্পন পাওয়া যায় না।

চিকিৎসায় নতুন সব আরো ব্যবস্থা

কার্ডিয়াক ট্রান্সপ্ল্যান্ট ও মেকানিকাল সার্কুলেটরি সাপোর্ট

ডা. সোহেল জানান, কার্ডিয়াক ট্রান্সপ্ল্যান্ট ও মেকানিকেল সার্কুলেটরি সাপোর্ট কার্ডিয়াক ফেইলিউর রোগীদের জন্য এক নতুন দিগন্ত সূচনা করেছে। টোটাল আর্টিফিশিয়াল হার্ট এখন ব্রিজ টু ট্রান্সপ্লান্ট রোগীদের জন্য অনেক সহজলভ্য হয়েছে। যে সব কার্ডিয়াক ট্রান্সপ্লান্ট রোগীরা অপেক্ষমান আছেন বা হয়তো তাদের শারীরিক গঠনের জন্য হাই ডিগ্রি অব সেনসিটাইজেশনের জন্য এই সমস্ত আর্টিফিসিয়াল হার্ট ডেসটিনেশন থেরাপি হিসাবে ব্যবহৃত হতে পারে। তিনি জানান. অ্যরিথমিয়া সার্জারি প্রতিনিয়ত নতুনভাবে বিকশিত হচ্ছে। কার্ডিয়াক সার্জন ও ইলেকট্রোফিজিওলজিস্ট- এর সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এ সকল সার্জারি এখন কম আক্রমণাত্বক এবং সহনীয় হয়ে উঠেছে রোগীদের জন্য। সেই সাথে হাইব্রিড এপ্রোচ-এর সম্ভাবনার দ্বার নতুনভাবে প্রসারিত হচ্ছে।

মিনিমাল এক্সেস সার্জারি

ছোট করে কেটে হার্ট সার্জারি, রোবোটিক টেকনোলজি ও নোবেল বায়োকমপেটবল কার্ডিও পালমোনারি বাইপাস সার্কিট অথবা এ সার্কিট ব্যবহার না করে সার্জারি, সার্জারি পরবর্তী জটিলতা অনেক কমিয়ে দিয়েছে।  এখন অনেক ছোট করে কেটে হার্ট ভাল্ব-এর সব ধরনের সার্জারি ও বাইপাস সার্জারি নিয়মিত সম্পন্ন হচ্ছে। তিনি জানান, কার্ডিয়াক সার্জারির ভবিষ্যত সম্ভাবনা অনেক উজ্জ্বল। কার্ডিয়াক সার্জন নিজেকে একজন ইন্টারভেনশনাল কার্ডিয়াক স্পেশালিস্ট হিসেবে বিকশিত করছেন ও তৈরি হচ্ছেন। তিনি বলেন,পর্দার মধ্যে যখন ছিদ্র হয়ে যায় হার্ট সার্জারির মাধ্যমে সেই ছিদ্র বন্ধ করে রোগীর জীবন বাঁচানো হয়। কিন্তু ভবিষ্যতে আমরা পাবো পারকিউটেনাস ক্লোসার ডিভাইস যা ব্যবহৃত হবে পোস্ট ইনফেকশনাল ভেন্ট্রিকুলার সেপটাল ডিফেক্ট অথবা পোস্ট ইনফার্কশনাল মাইট্রাল রিগারজিটেশন এ ব্যবহারের জন্য।
হার্ট-এর ভাল্ব-এর আধুনিক চিকিৎসা যেখানে ট্রান্সকেথেটার আওরটিক ভাল্ব রিপ্লেসমেন্ট এখন অনেক সেন্টারে নিয়মিত হচ্ছে। যা আওরটিক স্টেনোসিস এ প্রথম সারির চিকিৎসায় উঠে এসেছে।

ডা. সোহেল মনে করেন, সাইট্রাল ভাল্ব সার্জারির ক্ষেত্রে ট্রান্সকেথেটার টেকনিক এ অভূতপূর্ব উন্নতি হয়েছে যা হয়তো নিয়মিত ব্যবহৃত হবে খুব শিগগিরই । আর এই সব নতুন টেকনোলজির সাথে কার্ডিয়াক সার্জনকে সমানতালে দক্ষতা ও প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে অন্যান্য সেন্টারের সাথে এগিয়ে যেতে হবে।

দেশে হৃদরোগের চিকিৎসার ক্ষেত্রে এমন সব সুসংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে কাল মঙ্গলবার  ২৯ সেপ্টেম্বর হতে যাচ্ছে বিশ্ব হার্ট দিবস।   এবছরের প্রতিপাদ্য ‘হৃদয় দিয়ে হৃদরোগ প্রতিরোধ’।

পালাবদল/এমএ


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]