রাজনীতি
একু্শের বইমেলাকে ‘আওয়ামী বইমেলা’য় পরিণত করেছে সরকার: রিজভী
একু্শের বইমেলাকে ‘আওয়ামী বইমেলা’য় পরিণত করেছে সরকার: রিজভী





নিজস্ব প্রতিবেদক
Tuesday, Feb 11, 2020, 6:32 pm
 @palabadalnet

ঢাকা: একু্শের বইমেলার সর্বজনীনতা ক্ষুন্ন করে সরকার একে ‘আওয়ামী বইমেলা’য় পরিণত করেছে বলে অভিযোগ করেছেন রুহুল কবির রিজভী।

মঙ্গলবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব এই অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, “ফেব্রুয়ারি মাসে অমর ২১ শে গ্রস্থ মেলা চলছে। এই বইমেলাটি আগে ছিলো সার্বজনীন। কিন্তু এখন ২১ শে বইমেলা আওয়ামী বই মেলায় পরিণত হয়েছে। বইমেলার সর্বজনীনতা হারিয়ে গেছে। মেলার সর্বজনগ্রাহ্য সম্ভ্রম ক্ষুন্ন করা হয়েছে।”

“এই বইমেলার বিভিন্ন স্টল আওয়ামীকরণে সজ্জিত করা হয়েছে। মেলায় ঢুকলেই মনে হয়, এটি যেন আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অধিবেশন। একদলীয় দুঃশাসনের দুরন্ত প্র্রভাব পড়েছে চলমান ২১ শে বইমেলা। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।”

‘মানুষের পকেট কাটতে ফের নতুন ব্যাংক’

রিজভী বলেন, “নতুন করে লুটপাট করতে আরো তিনটি ব্যাংকের অনুমতি দিচ্ছে সরকার। রোববার আওয়ামী লীগের এক নেতার নামে অনুমোদন দেয়া হয়েছে বেঙ্গল কমার্সিয়াল নামে একটি ব্যাংকের। পাশাপাশি চারটি ব্যাংককে পূঁজিবাজারে নামানো হচ্ছে নতুন করে জনগণের পকেট কাটার জন্য।”

“একদিকে যেমন ঋণে চলছে সরকার। পাশাপাশি বিভিন্ন স্বায়ত্বশাসিত ও সেক্টর করপোরেশনের উদ্বৃত্ত অর্থস তুলে নিয়ে যাচ্ছে সরকার জোর করে। অন্যদিকে নতুন করে আইন প্রণয়ন করা হচ্ছে কোনো ব্যাংক দেউলিয়া হয়ে গেলে আমানতকারীর যত আমানতই থাকুক না কেন, মাত্র ১ লক্ষ টাকার বীমা দেয়া হবে। কী ভয়ংকর অবস্থা। এটা তো রীতিমতো রাক্ষস রাজ্যে পরিণত করা হয়েছে দেশকে।”

তিনি বলেন, “বাংলাদেশে এখন সরকারের রাঘব-বোয়ালদের জন্য লুটপাটের সব অর্গল উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে। যে যেভাবে পারছে লুটে নিচ্ছে। পত্রিকায় প্রকাশিত খবর অনুযায়ী কোনো রকমের যাচাই-বাছাই না করে এক ব্যাংকের পরিচালনরা আরেক ব্যাংক থেকে ঋণ নিচ্ছেন ইচ্ছামতো। নামমাত্র ব্যবসায়ী, ব্যাংক পরিচালক, ব্যাংকের শীর্ষ কর্মকর্তা ও আওয়ামী রাজনৈতিকের সংঘবন্ধ চক্র সুকৌশলে লুট করছে ব্যাংকের টাকা।”

“ব্যাংকখাত থেকে প্রতিনিয়ত বেরিয়ে পড়ছে জনগণের গচ্ছিত অর্থ। যাচ্ছে, আর ফিরে আসছে না। সংসদে অর্থমন্ত্রীর দেয়া তথ্যমতে, শুধু মাত্র ব্যাংক পরিচালকরাই একলাখ ৭১ হাজার, ৬১৬ কোটি টাকা ঋণ নিয়েছেন। যা মোট বিতরিত ঋণের ১১ দশমিক ২১ শতাংশ।এর ফলে ব্যাংক খাতে খেলাপী ঋণের পরিমাণ ১ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে।”

নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবুল খায়ের ভুঁইয়া, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকনসহ কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

পালাবদল/এমএম


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]