মঙ্গলবার ২৮ জানুয়ারি ২০২০ ১৫ মাঘ ১৪২৬
 
দক্ষিণ এশিয়া
ভারত অধিকৃত কাশ্মিরে আটক, ইন্টারনেট বন্ধের নিন্দা যুক্তরাষ্ট্রের
ভারত অধিকৃত কাশ্মিরে আটক, ইন্টারনেট বন্ধের নিন্দা যুক্তরাষ্ট্রের





ডন
Tuesday, Jan 14, 2020, 1:13 pm
 @palabadalnet

এলিস ওয়েলস

এলিস ওয়েলস

যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক কূটনীতিক এলিস ওয়েলস ভারত অধিকৃত কাশ্মিরে অব্যাহত আটকের ঘটনা ও ইন্টারনেট বন্ধের নিন্দা করেছেন। নয়া দিল্লিতে সফরে যাওয়ার প্রাক্কালে তিনি এই নিন্দা করলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক ব্যুরোর সরকারি ওয়েবসাইটে পোস্ট করা এক টুইটে ওয়েলস বলেন: সম্প্রতি ভারতে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ও অন্যান্য কূটনীতিকদের জম্মু-কাশ্মির সফরের উপর ঘনিষ্ঠ নজর রাখছি। গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। রাজনৈতিক নেতা ও অধিবাসীদের আটক এবং ইন্টারনেটের উপর বিধিনিষেধ নিয়ে আমরা এখনো উদ্বিগ্ন। স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসবে বলে আমরা আশা করছি।

১৫০ দিনের বেশি কাশ্মিরে কোনো ইন্টারনেট নেই।

তিন দিনের সফরে ১৫ জানুয়ারি নয়া দিল্লি যাবেন ওয়েলস। তিন সেখানে দ্বিপাক্ষিক ও আঞ্চলিক ইস্যু নিয়ে সিনিয়র কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলবেন। এরপর ১৯ জানুয়ারি তিনি একইভাবে তিন দিনের সফরে ইসলামাবাদ যাবেন।

গত বৃহস্পতিবার মোদি সরকার কিছু বিদেশী কূটনীতিককে নিয়ে জম্মু-কাশ্মিরে একটি ‘গাইডেড ট্যুরে’র আয়োজন করে। পাঁচ মাস আগে ভূখণ্ডটির বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার পর এই সফরের আয়োজন করা হলো।

মার্কিন সংবাদ মাধ্যম ভয়েস অব আমেরিকা (ভোয়া)’র প্রতিবেদনে বলা হয়, ইউরোপীয় ইউনিয়নের দূতরা এই আমন্ত্রণ গ্রহণ করতে অস্বীকার করেন কারণ তাদেরকে সেখানকার তিন সাবেক মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের অনুমতি দেয়া হয়নি। কাশ্মিরের রাজনীতিতে প্রভাববিস্তারকারী রাজনৈতিক দলগুলোর এসব নেতাকে আটক রাখা হয়েছে।

তবে মার্কিন রাষ্ট্রদূত কেনেথ জাস্টারের নেতৃত্বে একটি গ্রুপ সেখানে গেলে তাদেরকে নিরাপত্তা সংস্থাগুলোর নির্বাচিত ভারতীয় সামরিক কর্মকর্তা, রাজনীতিক ও সাংবাদিকদের সঙ্গে সাক্ষাত করতে দেয়া হয়।

অশান্ত এই অঞ্চলে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে এসেছে বুঝাতে ভারত এ সফরের আয়োজন করে। গত আগস্ট থেকে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে রাখায় ওই অঞ্চলের জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। সেখানে সকাল সন্ধ্যা কারফিউ বলবৎ রয়েছে। ভারতীয় কর্তপক্ষ সামাজিক গণমাধ্যম ও প্রচলিত ধারার সংবাদ মাধ্যমগুলোর উপর বিধিনিষেধ আরোপ করে রেখেছে। ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী শত শত কাশ্মিরিকে গ্রেফতার করেছে, যাদের মধ্যে সিনিয়র রাজনীতিকরাও রয়েছেন। তারা এখনো আটক এবং ইন্টারনেট বন্ধ করে রাখা হয়েছে।

কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যে এক ডজনের বেশি দেশের রাষ্ট্রদূতকে মটরশোভাযাত্রা সহকারে বিমান বন্দর থেকে নির্বাচিত কিছু এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয়।

ভিওএ’র খবরে বলা হয, কূটনীতিকদের নিয়ে যাওয়া হলেও অধিকার কর্মী, বিদেশী সাংবাদিকদের কাশ্মিরে প্রবেশ সবসময় নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রাখা হয়েছে। এমনকি বিদেশী এবং বিরোধী নেতাদেরও কাশ্মির যেতে দিচ্ছে না মোদি সরকার।

ভোয়ার খবরে বলা হয় যে, ভারতের বিরোধী দলগুলো তাদের নেতাদের কাশ্মির যেতে না দেয়ার নিন্দা করছে এবং তারা রাষ্ট্রদূতদের সফরকে ‘গাইডেড ট্যুর’ হিসেবে অভিহিত করেন।

কংগ্রেস নেতা মনিষ তেওয়ারি বলেন, সরকার কাশ্মিরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক বলে দেখানোর যতই চেষ্টা করুক না কেন সেটা বাস্তবতা থেকে অনেক দূরে। 

মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সঙ্গীর তালিকায় যারা ছিলেন তাদের মধ্যে রয়েছেন নরওয়ে, ভিয়েতনাম, দক্ষিণ কোরিয়া, ব্রাজিল, উজবেকিস্তান, বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের রাষ্ট্রদূত।

অবশ্য পরে জানা গেছে তালিকায় নাম থাকলেও ব্রাজিলের দূত আন্দ্রে আরানহা কোরিয়া দো লাগো শ্রীনগর যাননি।

মোদি সরকারের এই উদ্যোগকে পরিস্থিতির উন্নতি দেখানোর চেষ্টা হিসেবে অভিহিত করেন অবজারভার রিসার্স ফাউন্ডেশনের বিশ্লেষক মনোজ জোশি।

পালাবদল/এমএম



  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]