রোববার ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
 
শিক্ষাঙ্গন
ভালা আম না পাঠালে লিটনের খবর আছে: রাবিতে রাষ্ট্রপতি
ভালা আম না পাঠালে লিটনের খবর আছে: রাবিতে রাষ্ট্রপতি





রাবি প্রতিনিধি
Saturday, Nov 30, 2019, 11:40 pm
Update: 30.11.2019, 11:42:41 pm
 @palabadalnet

রাবি: শনিবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একাদশ সমাবর্তন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ- সমকাল

‘রাজশাহী আসছি, কয়েকদিন পরেই আম পাকার কথা। মনে হয় আইস্যা পড়তাছে। এখানে আমার বাবাজি আমাদের মেয়র সাব, আমার ভাতিজা লিটন এবং আমাদের প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমও আছেন। বলে যাচ্ছি আর কি- আমের সিজনে যেন ভালা আম পাঠানো হয়। আম না পাঠাইলে কিন্তু খবর আছে। আম পাঠাইলে যেন আবার ফরমালিন বিষটিষ না থাকে।’

শনিবার রাবির সমাবর্তন অনুষ্ঠানে এভাবেই রসিকতা করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

সমাবর্তনে এসে স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনি আরও বলেন, '৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানের সূচনা হয়েছিল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শামসুজ্জোহার আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে। তার স্ত্রী ডলি জোহা আমার সহপাঠী ছিল। আমরা একই স্কুল থেকে মেট্রিক পরীক্ষা দিয়েছিলাম ১৯৬১ সালে। এরপর আর তাকে দেখি নাই। কিন্তু এই ১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে মেয়েসহ বাংলাদেশে এসেছিল। ওই সময় বঙ্গভবনে সে আসছিল। তখন ড. শামসুজ্জোহা সম্পর্কে অনেক স্মৃতিচারণ হয়েছিল।’

একবার এক শিশু চোর বলেছিল, সেই স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে মো. আবদুল হামিদ বলেন, ‘১৯৭৬ সালে আমি তখন এমএলএ। আমাকে ময়মনসিংহ থেকে প্রথমে কুষ্টিয়া জেলে পাঠায়। এরপর রাজশাহীতে আনা হবে। এক পুলিশ কর্মকর্তা বললেন, আপনি তো পালাবেন না, তাছাড়া এমএলএ। তাই হ্যান্ডকাফ না লাগিয়ে কোমরে দড়ি না বেঁধেই নিয়ে যাওয়া হবে। তখন আমি উকিল হইনি, তবে উকিল হওয়ার পথে। মানে লেখাপড়া শেষের দিকে। আমি মনে মনে ভাবলাম, বিভিন্ন জায়গায় পুলিশ কয়েদিদের মেরে ফেলেছে। আমি পালানোর চেষ্টা করেছি দাবি করে যদি রাস্তায় গুলি করে মেরে ফেলে, সেজন্য বললাম- না বাবা, আমাকে হ্যান্ডকাফ লাগিয়েই নিয়ে যান। যদি মারার ষড়যন্ত্র থাকে আর কি! তারপর তারা আমার কোমরে দড়ি বেঁধে ফেরিতে তোলে। ফেরিতে আসার পথে আমাকে দেখে সাত বছরের একটি শিশু তার মাকে আস্তে আস্তে বলে- মা, দেখো চুর (চোর)। তার মা শিশুটিকে বলে চুপ করো। আমি পাশ থেকে শিশুর চোর ডাকটি শুনতে পাই। তখন তাকে বলি- তুমি চুর বলো। চুরদেরই এইভাবে দড়ি দিয়ে বেঁধে নিয়ে যায়। কোনো অসুবিধা নাই।’

রাজশাহী এবং জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের স্মৃতিচারণ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘শহীদ কামারুজ্জামান আমার খুব কাছের মানুষ ছিলেন। তার ডাকনাম হেনা ছিল। আমি হেনা ভাই বলেই ডাকতাম। একজনের বেডে আমরা দু'জন থাকতাম। হেনা ভাই একটু মোটা ছিলেন, আমি চিকন ছিলাম। মাঝে মাঝে ভাই একটু নড়লে আমি নিচে পড়ে যেতাম। তাছাড়া তিনি এমন নাক ডাকতেন, ঘুমানোর উপায় ছিল না।’ রাষ্ট্রপতির এমন রসিকতায় হাসির রোল পড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে অনুষ্ঠানে। হাসেন রাষ্ট্রপতি নিজেও।

পালাবদল/এমএম


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]