সোমবার ১৮ নভেম্বর ২০১৯ ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
 
রাজনীতি
খালেদ মোশাররফ বঙ্গবন্ধু ও চার নেতার খুনীদের দেশত্যাগের সুযোগ করে দেন, বিস্ফোরক ইনু
খালেদ মোশাররফ বঙ্গবন্ধু ও চার নেতার খুনীদের দেশত্যাগের সুযোগ করে দেন, বিস্ফোরক ইনু





নিজস্ব প্রতিবেদক
Thursday, Nov 7, 2019, 4:26 pm
 @palabadalnet

ঢাকা: মুক্তিযুদ্ধের ২ নং সেক্টর কমান্ডার ও কে-ফোর্সের অধিনায়ক খালেদ মোশররফের নাম উল্লেখ করে জাসদ সভাপতি সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপি বলেছেন, তিনি (খালেদ মোশররফ ) বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার খুনীদের নিরাপদে দেশত্যাগ করার সুযোগ করে দেন। খন্দকার মোশতাককে আটক করা তো দূরের কথা খালেদ তার সঙ্গেই যোগসাজশে নিজে সেনাপ্রধানের ব্যাজ লাগান। 

৭ নভেম্বর ‘সিপাহী জনতার অভ্যুত্থান দিবস’ উপলক্ষে ঢাকা মহানগর জাসদের উদ্যোগে আজ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে শহীদ কর্নেল তাহের মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির ভাষণে ইনু এসব কথা বলেন। 

জাসদ ঢাকা মহানগর কমিটির যুগ্ম সমন্বয়ক নুরুল আখতারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন দলের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপি, শহীদ কর্নেল তাহেরের অনুজ বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ সাবেক উপাচার্য জাসদ স্থায়ী কমিটির সদস্য অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন, জাসদ নেতা ফজরুর রহমান বাবুল, শফি উদ্দিন মোল্লা, শহীদুল ইসলাম, রোকনুজ্জামান রোকন, নইমুল আহসান জুয়েল, ওবায়দুর রহমান চুন্নু, সাইফুজ্জামান বাদশা, মীর্জা মোঃ আনোয়ারুল হক, মাইনুর রহমান, এ কে এম শাহ আলম, অ্যাডভেকেট মহিবুর রহমান মিহির, ইদ্রিস আলী, সৈয়দা শামীমা সুলতানা হ্যাপী, মাহবুবুর রহমান, আহসান হাবিব শামীম প্রমুখ।

হাসানুল হক ইনু বলেন, যারা ৭ নভেম্বরকে অফিসার হত্যা বা বিপ্লব সংহতি হিসাবে চিহ্নিত করার অপচেষ্টা করে যাচ্ছেন তারা আসলে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার হত্যাকারী ও ক্ষমতালিপ্সু অফিসারদের কামড়াকামড়ির কুৎসিত ঘটনা আড়াল করতে চান। ইনু বঙ্গবন্ধু হত্যা নিয়ে বলেন, জিয়া, খালেদ, শাফায়াত জামিলসহ সবাই কি আঙ্গুল চুষছিলেন? খালেদ বঙ্গবন্ধুর খুনীদের শায়েস্তা করতে নয়, নিজে ক্ষমতা দখল করতে অভ্যুত্থান করেছিলেন।

ইনু বলেন, শহীদ কর্নেল তাহের শুধু আদালতের রায়েই একজন মহান দেশপ্রেমিক বিপ্লবী নন, তিনি জনতার বিচারেও একজন মহান দেশপ্রেমিক বিপ্লবী। 

ইনু আরো বলেন, ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর শহীদ কর্নেল আবু তাহের বীর উত্তমের নেতৃত্বে সিপাহী বিদ্রোহ ছিল ঔপনিবেশিক রাষ্ট্র ব্যবস্থার পরিবর্তন আনতে এক মহান বিপ্লবী প্রচেষ্টা। জিয়ার বিশ্বাসঘাতকতায় সিপাহী-জনতার অভ্যূত্থান প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যায়। 

ইনু আরো বলেন, জিয়া সিপাহীদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করে নিজের ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করতে রক্তের হুলি খেলায় মেতে উঠেন। কর্নেল তাহেরকে সাজানো মিথ্যা মামলায় বিচারের নামে প্রহসন করে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করেন।

জাসদ নেতা বলেন, সিপাহী-জনতার অভ্যুত্থান ছিল বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতাকে হত্যা, অবৈধ ক্ষমতা দখল, সংবিধান লংঘন, সামরিক শাসন জারি, সেনাবাহিনীর প্রাতিষ্ঠানিক ক্ষমতাকে ব্যবহার করে ক্ষমতালিপ্সু অফিসারদের ব্যক্তিগত ক্ষমতা দখলের জন্য পাগলা কুকুরের মতো কামড়াকামড়ি বন্ধ করতে এবং রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা-সংকট দূর করতে।

ইনু বলেন, পরবর্তীতে কয়েকশ অফিসার ও সৈনিককে হত্যা করা হয়। জলিল, রব, সিরাজুল আলম খান, হাসানুল হক ইনু, রবিউল আলমসহ জাসদের নেতাদের সামরিক আদালতে মিথ্যা মামরায় প্রহসণমূলক বিচারে যাবজ্জীবনসহ বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়ে অমানবিক কারা নির্যাতন চালায়। 

তিনি বলেন, সিপাহী জনতার অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা জিয়ার বিশ্বাসঘাতকতায় সফল না হলেও ঔপনিবেশিক রাষ্ট্র কাঠামোর ওপর আঘাত হানে। 

ইনুর দাবি, ইতিহাস ৭ নভেম্বরের ঘটনা কর্নেল তাহের মহানায়ক আর জিয়াকে খলনায়ক হিসেবে চি‎হ্নিত করেছে।

পালাবদল/এমএম


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]