বৃহস্পতিবার ১৪ নভেম্বর ২০১৯ ২৯ কার্তিক ১৪২৬
 
প্রতিরক্ষা
আফগানিস্তানে সেনা সংখ্যা কমানো শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র, জানালো কমান্ডার
আফগানিস্তানে সেনা সংখ্যা কমানো শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র, জানালো কমান্ডার





দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট
Tuesday, Oct 22, 2019, 11:13 pm
 @palabadalnet

যুক্তরাষ্ট্র গত বছর আফগানিস্তানে সেনা সংখ্যা কমিয়েছে বলে জানিয়েছেন আফগানিস্তানের আমেরিকান ও ন্যাটো বাহিনীর কমান্ডার জেনারেল অস্টিন স্কট মিলার। সোমবার কাবুলে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ ঘোষণা দেন।

মিলার বলেন, “জনগণের কাছে যেটা অজানা রয়েছে, সেটা হলো এখানে আমরা আমাদের জনবল ২০০০ এর মতো কমিয়েছি”। সংবাদ সম্মেলনে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মার্ক টি এসপারও উপস্থিত ছিলেন। দায়িত্ব নেয়ার পর প্রথমবারের মতো আফগানিস্তান সফর করছেন তিনি।
 
সেপ্টেম্বরে তালেবানদের সাথে শান্তি চুক্তি ভেস্তে যাওয়া সত্বেও এই সেনা সংখ্যা হ্রাস করা হয়েছে। আফগানিস্তানে আমেরিকান সেনার সংখ্যা কমিয়ে আনার বিষয়টি তালেবানদের দর কষাকষির অন্যতম প্রধান বিষয় ছিল। অন্যদিকে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পও মার্কিন সেনাদের ঘরে ফিরিয়ে নিয়ে ‘অন্তহীন যুদ্ধের’ সমাপ্তি টানার কথা বলেছেন।

যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানরা শান্তি চুক্তির যে খসড়া নিয়ে একমত হয়েছিল, সেখানে ট্রাম্প প্রশাসন বলেছিল যে, আফগানিস্তানে আমেরিকান সেনা সংখ্যা ৮,৬০০ তে নামিয়ে আনার জন্য এই চুক্তির খসড়া করা হয়েছিল। আফগানিস্তানে বর্তমানে ১২ হাজারের সামান্য কিছু বেশি সেনা রয়েছে।

মিলার বলেন, “আফগানিস্তানে অংশীদারদের সাথে কাজ করার ক্ষেত্রে আমরা সবসময় বাহিনীর শক্তি বৃদ্ধির দিকে নজর দিয়েছি। আমি আত্মবিশ্বাসী যে, আমাদের সঠিক সক্ষমতা রয়েছে এবং এগুলো দিয়ে আমরা প্রশিক্ষণ, উপদেশ ও সহায়তা করার কাজ অব্যাহত রাখতে পারবো”।

কাবুলে মার্কিন সামরিক বাহিনীর মুখপাত্র সেনাবাহিনীর কর্নেল সোনি লেগেট বলেছেন, “জেনারেল মিলার কমান্ডারের দায়িত্ব নেয়ার পর এই সংখ্যা হ্রাসের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে”। মার্কিন বাহিনীকে ৮৬০০ তে নামিয়ে আনার যে ঘোষণা রয়েছে, এটা তার অংশ নয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে এসপার বলেন, “আমি যখন দায়িত্ব নিই, তখন আমি সকল কমান্ডারদের যেটা করতে বলেছি, জেনারেল মিলার ঠিক সেটাই করছেন। আমি তাদেরকে এটা দেখতে বলেছি যে, কোথায় তারা সময়, অর্থ ও জনবলের ব্যবহার কমাতে পারে”, যাতে পেন্টাগন তার জাতীয় প্রতিরক্ষা কৌশল অনুসারে চীন ও রাশিয়াকে মোকাবেলার ব্যবস্থা নিতে পারে। তিনি বলেন, সন্ত্রাস ও চরমপন্থাকে দমনও তাদের অগ্রাধিকারের অংশ।

যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবানদের মধ্যে শান্তি আলোচনা আনুষ্ঠানিকভাবে পুনরায় শুরু হয়নি। তবে মার্কিন বিশেষ দূত চলতি মাসের শুরুর দিকে পাকিস্তানে তালেবান নেতাদের সাথে বৈঠক করেছেন। শান্তি আলোচনা বাতিলের আগে এক বছরেরও বেশি সময় ধরে এটা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বেশ অনেক দফা আলোচনা হয়েছে।

পালাবদল/এমএম


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]