বৃহস্পতিবার ১৪ নভেম্বর ২০১৯ ২৯ কার্তিক ১৪২৬
 
প্রতিরক্ষা
আমেরিকা থেকে বিপুল সমরাস্ত্র কিনতে যাচ্ছে ভারত
আমেরিকা থেকে বিপুল সমরাস্ত্র কিনতে যাচ্ছে ভারত





পালাবদল ডেস্ক
Tuesday, Oct 22, 2019, 9:54 am
 @palabadalnet

আমেরিকা থেকে অস্ত্র আমদানির বিপুল বরাত দিতে চলেছে ভারত। আগামী সপ্তাহে তা চূড়ান্ত করতে পেন্টাগন থেকে এক বড় প্রতিনিধিদল আসছে দিল্লিতে। প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম বিক্রি দপ্তরের আন্ডার সেক্রেটারি এলেন এন লর্ড বলেছেন, দু’দেশের মধ্যে মিলিটারি-টু-মিলিটারি সম্পর্ক আরও মজবুত করতে আমেরিকা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। 

মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তরের আশা, আগামী সপ্তাহে দিল্লিতে দু’দেশের বৈঠকে ভারতকে অস্ত্রবিক্রির যে চুক্তি হতে যাচ্ছে, তার দরুন এ-বছরের শেষ নাগাদ ভারতে মার্কিন সমরাস্ত্র বিক্রির পরিমাণ দাঁড়াবে ১৮০০ কোটি ডলারে। ভারত-মার্কিন প্রতিরক্ষা, কারিগরি ও বাণিজ্য সম্পর্কিত গোষ্ঠীর নবম বৈঠক হতে চলেছে দিল্লিতে। এই বৈঠকের পরই ভারতকে বিপুল পরিমাণ সমরাস্ত্র ও অত্যাধুনিক প্রযুক্তি বিক্রির চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হবে বলে ওয়াশিংটন আশাবাদী। 

আসন্ন বৈঠকের আগেই আমেরিকার পক্ষ থেকে স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়েছে গত আগস্ট মাসে দু’দেশের বৈঠকে ভারতকে স্ট্র্যাটেজিক ট্রেড অথরিটি টায়ার-১ মর্যাদা দিয়েছে আমেরিকা। এই মর্যাদা অনুযায়ী ন্যাটো সামরিক জোটের অন্তর্ভুক্ত রাষ্ট্রসমূহ যেমন জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া মার্কিন দেশ থেকে অস্ত্র আমদানিতে যেসব সুবিধালাভ করে থাকে, ভারতও একইরকম সুবিধা পাবে আমেরিকা থেকে সমরাস্ত্র কিনতে। 

লক্ষণীয়, ইতিপূর্বে হোয়াইট হাউসের নির্দেশে কয়েক দফা বৈঠকে ভারতকে ন্যাটো সামরিক জোটের সদস্যের মতো মর্যাদা দিতে মার্কিন আইন পরিষদে একটি বিল আনা হয়। যদি হোয়াইট হাউসের এই উদ্যোগ চূড়ান্ত রূপ পায় তাহলে আনুষ্ঠানিক না হলেও মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটের সমস্যদের মতো মর্যাদা পাবে ভারত। অর্থাৎ জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া, আমেরিকা থেকে অস্ত্র আমদানিতে যেসব সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকে ভারতও তার সমকক্ষ হবে। আরও খোলসা করে উল্লেখ করতে হয়, ভবিষ্যতে ন্যাটো বাহিনীর সদস্য হিসাবে গণ্য করতে একই পঙ্‌ক্তিতে ফেলা হবে ভারতকে। 

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দেখাতে চান, শক্তিশালী ভারত গড়তে বিদেশ থেকে অস্ত্র আমদানিও জরুরি। তাঁর লক্ষ্য প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলি যাতে ভারতের সমরশক্তি দেখে গুটিয়ে থাকতে বাধ্য হয়। শিল্প-বাণিজ্য-অর্থনীতি ইত্যাদি ক্ষেত্রে উন্নতি করে বিশ্বের দেশগুলির কাছে মর্যাদা ও সম্মান অর্জন এবং শিক্ষা-গবেষণা প্রযুক্তিতে বিশ্বের সামনে নজির সৃষ্টির উৎসাহ নেই মোদীর নেতৃত্বাধীন ভারত সরকারের। তাদের যাবতীয় উৎসাহ ও উদ্দীপনার কেন্দ্রবিন্দুতে দেখা যাচ্ছে সমরশক্তি বাড়ানো। বিদেশ থেকে যুদ্ধাস্ত্র ও অত্যাধুনিক সামরিক সরঞ্জাম কেনাতেই নজর বেশি তাদের। 

বিপরীতে অর্থনীতির বৃদ্ধি, কর্মসংস্থান, আয় বৃদ্ধি ও জীবনমানের উন্নতি, সম্পদবৈষম্য হ্রাস ইত্যাদি উহ্য থেকে যাচ্ছে। আন্তর্জাতিক প্রতিবেদন অনুসারে ২০১২ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত পাঁচ বছরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যত অস্ত্র আমদানি করেছে তাদের মধ্যে সর্বোচ্চ স্থানে রয়েছে ভারত। বিশ্বের মোট অস্ত্র আমদানির ১৩ শতাংশই ভারতের। আগের পাঁচ বছরে অর্থাৎ ২০০৭ থেকে ২০১১ সাল অবধি ভারতের অংশ ছিল ৯.৭ শতাংশ। বস্তুত সামগ্রিকভাবে আগের পাঁচ বছরের তুলনায় ২০১২ থেকে ২০১৬ সালে সারা বিশ্বে অস্ত্র রপ্তানির পরিমাণ অনেকটাই বেড়েছে। সেই বৃদ্ধির গরিষ্ঠ অংশই এসেছে ভারতে। অন্যদিকে ইউরোপ, আফ্রিকাসহ তৃতীয় বিশ্বের উন্নয়নকামী দেশগুলির অস্ত্র আমদানি কমেছে। বেড়েছে প্রধানত আরব দুনিয়া ও এশিয়ায়। 

আসলে উন্নত পুঁজিবাদী দুনিয়ার অর্থনীতির সঙ্কট আজ যেখানে এসে ঠেকেছে তাতে অস্ত্র উৎপাদন ও রপ্তানি ছাড়া অবস্থা সামাল দেওয়ার পথ খুঁজে পাচ্ছে না তারা। অস্ত্র রপ্তানির জন্য প্রয়োজন হচ্ছে ক্রমপ্রসারমান বাজার। অস্ত্রের বাজার আপনা থেকে তৈরি হয় না। বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্ন দেশের মধ্যে দ্বন্দ্ব, সংঘাত, বৈরিতা যত বাড়ানো যাবে, যুদ্ধোন্মাদনা যত বৃদ্ধি পাবে ততই বিবদমান গোষ্ঠীগুলির মধ্যে সমরাস্ত্র সংগ্রহের প্রবণতা বাড়বে। সাম্রাজ্যবাদী দুনিয়া এই কৌশলেই তাদের অস্ত্রের বাজারকে কাজে লাগিয়ে থাকে। সে অনুযায়ী অস্ত্রের চাহিদাকেও তাদের স্বার্থে কাজে লাগায়। দেখা যাচ্ছে আরব দুনিয়ায় ইয়েমেন, সিরিয়া, ইরাকে লাগাতার সংঘাত জিইয়ে রেখে অস্ত্র বিক্রির ব্যবস্থা চলে। 
অপর দিকে উন্নয়ন ও অগ্রগতির প্রতীক সামরিক শক্তিতেও বলীয়ান চীন। চীনকে লক্ষ্য রেখেও কিছু দেশ অস্ত্র মজুত করছে। নরেন্দ্র মোদীর ভারতও সাম্রাজ্যবাদী এই পরিকল্পনার জালে ক্রমশ জড়িয়ে পড়ছে। সামরিক শক্তিতে বলীয়ান ভারতকে দেখে বিভিন্ন দেশ, বিশেষ করে পড়শিরা যাতে সমীহ করে গুটিয়ে থাকে সেই লক্ষ্য নিয়েই চলছে ভারত। খাদ্যে স্বয়ম্ভরতা নয়, শিক্ষা-গবেষণা-প্রযুক্তিতে এগিয়ে গিয়ে বিশ্বের কাছে নজরকাড়া নয় মোদীর সরকার চাইছে সামরিক শক্তিতে বলীয়ান হতে। আগামী সপ্তাহে দিল্লিতে ভারত-মার্কিন প্রতিরক্ষাগোষ্ঠীর যে বৈঠক হতে যাচ্ছে সেখানে বিপুল সমরাস্ত্র ও অত্যাধুনিক প্রযুক্তি কেনার লক্ষ্যও কিন্তু তাই। এতে সাম্রাজ্যবাদী অস্ত্রের ব্যাপারিরাও তুষ্ট হবে। আর খুশি হবে এই ব্যাপারিদের অভিভাবক আমেরিকাও। সূত্র: গণশক্তি

পালাবদল/এমএম


  এই বিভাগের আরো খবর  
  সর্বশেষ খবর  
  সবচেয়ে বেশি পঠিত  


Copyright © 2019
All rights reserved
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]
সম্পাদক : সরদার ফরিদ আহমদ
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৩৭৩/৩২ ফ্রি স্কুল স্ট্রিট, হাতিরপুল, কলাবাগান, ঢাকা-১২০৫
ফোন : +৮৮-০১৮৫২-০২১৫৩২, ই-মেইল : [email protected]